সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages
Filter by Categories
24 hour essay writing service
Uncategorized
অর্থনীতি
আদালত
আন্তর্জাতিক
আবহাওয়া
ইসলাম
কলাম
ক্যাম্পাস
ক্রিকেট
খেলাধুলা
চাকুরির খবর
ছবি
জাতীয়
জীবন ব্যবস্থা
তথ্যপ্রযুক্তি
ধর্ম
নির্বাচিত খবর
পরামর্শ
পুঁজিবাজার
প্রবাস
ফিচার
ফুটবল
ফেসবুক কর্নার
বিনোদন
বিবিধ
ভিডিও
ভোটের হাওয়া
মতামত
রাজধানী
রাজনীতি
রিপোর্টার পরিচিতি
শিক্ষা
শিরোনাম
শিল্প ও সাহিত্য
শীর্ষ খবর
সকল বিভাগ
সবখবর
সম্পাদকীয়
সর্বশেষ
সংস্কৃতি
সাক্ষাৎকার
সারাদেশ
সিটি কর্পোরেশন
স্বাস্থ্য কথা
শিরোনাম

এই প্রাকৃতিক মিনারের চূড়ায় বাস করেন একজন

এই প্রাকৃতিক মিনারের চূড়ায় বাস করেন একজন
প্রিন্ট করুন
বেশি দিনের কথা নয়, ১৯৯০ সালেই এই নিঃসঙ্গ প্রাকৃতিক মিনারের চূড়ায় নির্মিত হয়েছে একটি মনাস্টারি। এখানে বাস করেন মাক্সিম কাভতারাদজে নামক এক সন্ন্যাসী। একা।

১৯৯০ সালে এখানে মঠ নির্মিত হলেও জর্জিয়ার ইমেরেতি অঞ্চলের কাতাস্‌খি পিলারেরে ইতিহাস কিন্তু ২০০০ বছরের প্রাচীন। ৪০ মিটার উচ্চতা বিশিষ্ট প্রকৃতির খেয়ালে তৈরি এই মিনারটি একদা এই অঞ্চলের পৌত্তলিক ধর্মাবলম্বী সন্ন্যাসীরা ব্যবহার করতেন ধ্যান-অভ্যাসের জন্য। সেই সময়ে এই মনোলিথকে উর্বরাশক্তির দেবতার প্রতিভূ মনে করা হতো।

ওই অঞ্চলে খ্রিস্টধর্ম বিস্তৃত হলে ৬-৮ খ্রিস্টাব্দে একটি চার্চ নির্মিত হয় মিনার শীর্ষে। আজ সেখানে সামান্য ধ্বংসাবশেষ ছাড়া তার আর কিছুই অবশিষ্ট নেই। বিংশ শতকে বিশেষজ্ঞরা এই মিনারকে পর্যবেক্ষণ করেন। ১৯৪৪ সালে কাতাস্‌খি পিলার প্রথম জরিপ করা হয়। দেখা যায়, পুরনো চার্চের অবশেষ ছাড়াও এই মিনারের চূড়োয় তিনটি কুঠুরি রয়েছে, যেখানে প্রাচীন কালের সন্ন্যাসীরা থাকতেন। এখানেই একটি শিলালেখর সন্ধান পান প্রত্নতাত্ত্বিকরা, যাতে ‘গিয়র্গি’ নামের এক ব্যক্তির নাম পাওয়া যায়। অনুমান করা হয়, এই গিয়র্গিই ছিলেন এই সন্ন্যাসী-আবাসের রক্ষী।

আজ এই পিলারে বাস করেন মাক্সিম। তিনি তাঁর সন্ন্যাস-শপথ গ্রহণের পরেই এখানে চলে আসেন। এখানেই এক ছোট কুঁড়ে বানিয়ে তাতে তিনি বাস করতে শুরু করেন। মাক্সিমের ধারণায়, মিনার শীর্যের এই নির্জনবাস তাঁকে ঈশ্বরের কাছাকাছি রেখেছে। কেবল রসদ আনতে তিনি নীচে নামেন। সপ্তাহে দু’বার তাঁকে নীচে নামতে হয়। নীচে নামার জন্য একটা লোহার সিঁড়ি রয়েছে। মাক্সিম তাঁর নির্জনবাসের সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় তরুণদের মানসিক সমস্যার সমাধানে সাহায্যও করেন।

ভিডিও দেখুন:

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সংশ্লিষ্ট সংবাদ