সোমবার, ২৪ Jun ২০১৯, ০৯:২৭ অপরাহ্ন

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages
Filter by Categories
24 hour essay writing service
Uncategorized
অপরাধ
অর্থনীতি
আদালত
আন্তর্জাতিক
আবহাওয়া
ইসলাম
কলাম
ক্যাম্পাস
ক্রিকেট
খেলাধুলা
চাকুরির খবর
ছবি
জাতীয়
জীবন ব্যবস্থা
তথ্যপ্রযুক্তি
ধর্ম
নির্বাচিত খবর
পরামর্শ
পুঁজিবাজার
প্রবাস
ফিচার
ফুটবল
ফেসবুক কর্নার
বিনোদন
বিবিধ
ভিডিও
ভোটের হাওয়া
মতামত
রাজধানী
রাজনীতি
রিপোর্টার পরিচিতি
শিক্ষা
শিরোনাম
শিল্প ও সাহিত্য
শীর্ষ খবর
সকল বিভাগ
সবখবর
সম্পাদকীয়
সর্বশেষ
সংস্কৃতি
সাক্ষাৎকার
সারাদেশ
সিটি কর্পোরেশন
স্বাস্থ্য কথা
শিরোনাম

হত্যা মামলা নিয়ে পুলিশের গড়িমসির অভিযোগ

হত্যা মামলা নিয়ে পুলিশের গড়িমসির অভিযোগ
প্রিন্ট করুন
পাথরশ্রমিক শামছুদ্দিন ওরফে শামছু মিয়াকে (৫৪) বাড়ির সামনে থেকে অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় ১১ দিনেও মামলা নেয়নি নিকলী থানা পুলিশ। মামলা না নানিয়ে উল্টো নিকলী থানার ওসি নাসির উদ্দিন ভূঁইয়া নিহতের ছেলে জাহাঙ্গীর আলমের সাথে দুর্ব্যবহার করেন।

থানায় মামলা না নেয়ায় জাহাঙ্গীর মঙ্গলবার কিশোরগঞ্জ আদালতে মামলা করেছেন। মঙ্গলবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করে নিহতের পরিবারের লোকজন। কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের গৌরাঙ্গ বাজারে স্থানীয় একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

নিহত শামছুদ্দিন ওরফে শামছু মিয়া নিকলী উপজেলার কারাপাশা গ্রামের মৃত মারাজ মিয়ার ছেলে।

সংবাদ সম্মেলনে নিহত শামছুদ্দিন ওরফে শামছু মিয়ার স্ত্রী রওশন আরা, দুই ছেলে জাহাঙ্গীর আলম ও শরীফুল আলম দীপু, ছোট ভাই নূর মিয়া ও চাচা বজলুর রহমানসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিহতের বড় ছেলে জাহাঙ্গীর আলম।

লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করা হয়, প্রতিবেশী আবদুল লতিফ সালকারুম (৩৮) ও তার পরিবারের লোকজনের সাথে দীর্ঘদিন ধরে বাড়ির সীমানা নিয়ে শামছুদ্দিন ওরফে শামছু মিয়ার বিরোধ চলে আসছিল। ২০১১ সালের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কারপাশা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য পদে সালকারুম এবং শামছুদ্দিন ওরফে শামছু মিয়ার ছেলে জাহাঙ্গীর আলম প্রার্থী হলে দুই পরিবারের মধ্যে বিরোধ তুঙ্গে ওঠে।

এই বিরোধের জেরে দুই পরিবারের মধ্যে ঝগড়াঝাটিও হয়। এ রকম পরিস্থিতিতে গত ২৯ মে ভোর ৬টার দিকে শামছুদ্দিন ওরফে শামছু মিয়া নিকলীর মির্জাপুরে পাথরের নৌকায় শ্রমিকের কাজে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সড়কে পৌঁছলে আবদুল লতিফ সালকারুম, তার পিতা নূর হোসেন, খালাতো ভাই মামুন, খালু কডু মিয়া ও তার মামাতো ভাই ইয়াসিন মিলে নাক মুখে চেপে ধরে মামুনের অটোরিকশায় তুলে নেয়।

প্রায় এক কিলোমিটার দূরে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সড়কের মজলিশপুর ভূঁইয়া বাড়ির মোড়ে নিয়ে চলন্ত অটোরিকশাতেই শামছুদ্দিনের মাথায় বাটখারার পাথর ও ইট দিয়ে উপর্যুপরি আঘাত করে মাথা থেতলে দেয়া হয়। এছাড়া ধারালো ছুরির আঘাতে রক্তাক্ত করলে শামছুদ্দিন ওরফে শামছু মিয়া অটোরিকশাতেই অচেতন হয়ে পড়েন।

পরে চলন্ত অটোরিকশা থেকে তাকে রাস্তায় ছুঁড়ে ফেলে দেয়া হয়। এ সময় এলাকাবাসী শামছুদ্দিন ওরফে শামছু মিয়াকে উদ্ধার করে মুমূর্ষু অবস্থায় নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক চিকিৎসা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। পরে স্বজনেরা তাকে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখান থেকে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়।

ওইদিনই দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শামছুদ্দিন ওরফে শামছু মিয়াকে ভর্তি করা হয়। চার দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে ১ জুন দুপুর সাড়ে ১২টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় গত ৩ জুন নিহতের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম নিকলী থানায় মামলা করতে গেলে ওসি নাসির উদ্দিন ভূঁইয়া মামলা নিতে গড়িমসি করেন। জাহাঙ্গীর আলমের কান্নাকাটিতে এক পর্যায়ে ওসি মামলা নিতে রাজি হলেও তিনি নিজের মতো করে এজাহার তৈরি করে মূল আসামিদের বাদ দিয়ে জোর করে বাদী হিসেবে জাহাঙ্গীর আলমের স্বাক্ষর নেন। এ পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার আদালতে মামলা দায়ের করেন জাহাঙ্গীর আলম।

জাহাঙ্গীর আলম অভিযোগ করেন, নিকলী থানার ওসি নাসির উদ্দিন ভূঁইয়া বিষয়টি আপস করার জন্য চাপ দিচ্ছেন। ফলে তিনি ও তার পরিবার এখন নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন।

তবে নিকলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসির উদ্দিন ভূঁইয়া দাবি করেন, তার কাছে এ ধরনের কোনো অভিযোগ নিয়ে কেউ আসেনি। তাই মামলা নিতে গড়িমসি, মনগড়া এজাহারে স্বাক্ষর আদায় এসবের প্রশ্নই আসে না। এছাড়া কোনো ঘটনায় আপস করা পুলিশের কাজ নয়। পুলিশের কাজ অভিযোগ অনুযায়ী তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

shares