বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages
Filter by Categories
24 hour essay writing service
Uncategorized
অপরাধ
অর্থনীতি
আদালত
আন্তর্জাতিক
আবহাওয়া
ইসলাম
কলাম
ক্যাম্পাস
ক্রিকেট
খেলাধুলা
চাকুরির খবর
ছবি
জাতীয়
জীবন ব্যবস্থা
তথ্যপ্রযুক্তি
ধর্ম
নির্বাচিত খবর
পরামর্শ
পুঁজিবাজার
প্রবাস
ফিচার
ফুটবল
ফেসবুক কর্নার
বিনোদন
বিবিধ
ভিডিও
ভোটের হাওয়া
মতামত
রাজধানী
রাজনীতি
রিপোর্টার পরিচিতি
শিক্ষা
শিরোনাম
শিল্প ও সাহিত্য
শীর্ষ খবর
সকল বিভাগ
সবখবর
সম্পাদকীয়
সর্বশেষ
সংস্কৃতি
সাক্ষাৎকার
সারাদেশ
সিটি কর্পোরেশন
স্বাস্থ্য কথা
শিরোনাম

বুয়েট চাইলে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী

বুয়েট চাইলে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিটি ছাত্রবাসে অভিযানের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে এ নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১০ টাকা ১৫ টাকা ভাড়ায় হলে থাকবে আর সেখানে থেকে মাস্তানি করবে এটা হতে দেয়া হবে না। হলে কোনো জমিদারি চলবে না। প্রতিটি হলে অভিযান চালানো হবে। যে দলেরই হোক সবাইকে ধরা হবে।

এসময় ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ছাত্ররাই সব আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকায় থাকে। আমিও ছাত্ররাজনীতি করেই এখানে এসেছি। এখন একটা ঘটনা ঘটেছে বলেই ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করতে হবে কেন? তবে কোনো প্রতিষ্ঠান চাইলে নিজেরা সেটি করতে পারে।

সংবাদ সম্মেলনে বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ড নিয়ে কথা বলেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, অপরাধীকে আমি অপরাধী হিসেবেই দেখি। যখন আবরার হত্যাকাণ্ড ঘটলো তখনই আমি পুলিশকে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেই এবং সিসিটিভি ফুটেজ দেখে ব্যবস্থা নিতে বলি।

কিন্তু আমার প্রশ্ন, পুলিশ যখন ফুটেজ নিলো তখন তাদের আটকে দিলো। বলা হলো ফুটেজ প্রকাশ না করা হলে তাদের যেতে দেবে না। তখন আমার সন্দেহ হলো, তাহলে কি যারা ফুটেজ নিতে আটকে দিলো তাদের মধ্যে হত্যাকারীরাও ছিলো কিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা বাচ্চা ছেলেকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হলো। তাকে এমনভাবে হত্যা করা হয়েছে দেখে মনে হয়েছে সেই ২০০১ সালে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর যেরকম হামলা চালানো হয়েছিলো ঠিক সেইরকম ভাবে এই হত্যাকাণ্ড। এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, কে কখন কোনো দলে ঢুকে যায় তা বলা মুসকিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঘটনার পরই আমি ছাত্রলীগকে নির্দেশ দিয়েছি। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এসময় ফুটেজ নিতে পুলিশকে ৩ ঘন্টা আটকে কেন রাখা হলো সেই প্রশ্ন রাখেন প্রধানমন্ত্রী।

সংবাদ সম্মেলনে ভারতকে ফেনী নদীর পানি দেওয়া নিয়ে কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফেনী নদী নিয়ে কথা বলার শুরুতেই তিনি প্রশ্ন করেন, বলেনতো ফেনী নদীর উত্পত্তিস্থল কোথায়, কেউ না বললে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটা খাগড়াছড়িতে উত্পত্তি। যা ফেনীর সোনাগাজী হয়ে সাগড়ে চলে গেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটা সীমান্তবর্তী নদী। এতে দুই দেশেরই অধিকার থাকে। আমাদের প্রায় ৭টি নদী অছে সীমান্তবর্তী।

তিনি বলেন,  ভারতের সাবরোমে বিশুদ্ধ পানির অনেক অভাব। ফেনী থেকে সামান্য পানি আমরা তাদেরকে দেবো। যে পানিটুকু দিচ্ছি সেটার পরিমান অত্যন্ত নগন্য। এটা নিয়ে এতো চিৎকার কিসের জন্য আমি জানিনা।

তিনি বলেন, কেউ যদি পানি চায় আর আমরা যদি না দেই এটা কেমন কথা।

ভারতে এলপিজি গ্যাস রপ্তানি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন,এলপিজি বাংলাদেশে উৎপাদিত হয় না। গ্যাস আমদানি করে বোতলজাত করে আমাদের নিজেদের দেশে সরবরাহ করবো এবং ভারতের ত্রিপুরায় রপ্তানি করা হবে বলে জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রাকৃতিক গ্যাস বিক্রি করা হবে না। এসময় তিনি প্রাকৃতিক গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিয়ে খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এসেছিলেন বলে েস্মরণ করিয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের কোনো স্বার্থ শেখ হাসিনা বিক্রি করবে এটা কখনো হবে না। এসময় যারা ভারতকে গ্যাস দেওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তাদের সমালোচনা করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা এলপিজি গ্যাস আমদানি করে নিজেরা ব্যবহারের পর কিছুটা ত্রিপুরাকে দেওয়া হবে। আর ত্রিপুরা যদি কিছু চায় তবে তা দিতে হবে উল্লেখ করে মুক্তিযুদ্ধে রাজ্যটির অবদান স্মরণ করিয়ে দেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইর্য়কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৪তম অধিবেশনে অংশগ্রহণ এবং ভারত সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসেন প্রধানমন্ত্রী।

জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে ২২ থেকে ২৯ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্ক সফর করেন প্রধানমন্ত্রী। সেখান থেকে ফিরে ৩ থেকে ৬ অক্টোবর দিল্লি সফর করেন।

দিল্লি সফরে সাতটি সমঝোতা স্মারক ও চুক্তি সই হয় দু’দেশের মধ্যে।

যুক্তরাষ্ট্র সফরে এবার দুটি সম্মাননা পেয়েছেন শেখ হাসিনা। বাংলাদেশে টিকাদান কর্মসূচির সাফল্যের জন্য গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাক্সিনস অ্যান্ড ইমিউনাইজেশন (জিএভিআই) তাকে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ সম্মাননায় ভূষিত করেছে।

আর তরুণদের দক্ষতা উন্নয়নে ভূমিকার স্বীকৃতি হিসেবে জাতিসংঘ শিশু তহবিল- ইউনিসেফ তাকে ভূষিত করেছে ‘চ্যাম্পিয়ন অব স্কিল ডেভেলপমেন্ট ফর ইয়ুথ’ সন্মাননায়।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

shares