ঝিনাইদহ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আবদুল খালেকের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। বুধবার ঝিনাইদহে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর প্রচারে বাধা এবং সংঘর্ষের ঘটনার পর বৃহস্পতিবার এ সিদ্ধান্ত জানায় ইসি।

ইসির সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার জানান, কমিশন সভায় সার্বিক বিষয়ে আলোচনার পর তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে প্রার্থিতা বাতিলের এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

ঝিনাইদহে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী কাইয়ূম শাহরিয়ার জাহেদী হিজলসহ তার সমর্থকদের ওপর বুধবার হামলা হয়। এ হামলার জন্য খালেকের সমর্থকদের দায়ী করা হচ্ছে।

স্থানীয় সরকার (পৌরসভা নির্বাচন) আচরণ বিধিমালার ৩২ ধারায় বলা হয়েছে, আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে মেয়র বা কাউন্সিলর নির্বাচন হওয়ার অযোগ্য হতে পারেন এমন যে কোনো উৎস থেকে প্রাপ্ত রেকর্ড বা লিখিত রিপোর্ট কমিশনের কাছে এলে তা তাৎক্ষণিক তদন্তের নির্দেশ দিতে পারবে ইসি। তদন্ত রিপোর্ট পেয়ে কমিশন সন্তুষ্ট হলে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী বা তার পক্ষে কেউ বিধি লঙ্ঘন করেছে যার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রার্থী নির্বাচিত হওয়ার অযোগ্য হতে পারেন-তাহলে ইসি তাৎক্ষণিকভাবে ওই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করতে পারবে।

খালেকের প্রার্থিতা বাতিল হওয়ায় ঝিনাইদহে এখন হিজলসহ তিনজনের মনোনয়নপত্র বহাল রয়েছে। এর মধ্যে দুজন স্বতন্ত্র প্রার্থী, অন্যজন ইসলামী আন্দোলনের।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x