#ইউক্রেন বিষয়ক জাতিসংঘের সংকট সমন্বয়কারী সতর্ক করে বলেছেন, এ যুদ্ধে কোনো পক্ষই বিজয়ী হবে না। ইউক্রেন সংঘাত ইতোমধ্যে শততম দিনে পৌঁছেছে। এ পরিস্থিতিতে রুশ বাহিনী দেশটির পূর্ব দোনবাস অঞ্চলে ব্যাপক চাপ সৃষ্টি করছে। শুক্রবার আল জাজিরা এ খবর জানায়।

জাতিসংঘের সহাকারী মহাসচিব হিসেবে কাজ করা আমিন আওয়াদ এক বিবৃতিতে বলেন, ‘এই যুদ্ধে কোন বিজয়ী নেই এবং হবেও না। বরং, আমরা এমন ১০০ দিনের জন্য সাক্ষী হয়েছি, যখন আমরা জীবন, বাড়ি, চাকরি এবং সম্ভাবনা হারিয়েছি।’
তিনি বলেন, ‘এই যুদ্ধ অগ্রহণযোগ্যভাবে মানুষের প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে এবং কার্যত নাগরিক জীবনের সব দিককে গ্রাস করেছে।’ তিনি বলেন, ‘আমরা শহর এবং গ্রাম জুড়ে ধ্বংস আর ধ্বংস প্রত্যক্ষ করেছি। স্কুল, হাসপাতাল এবং আশ্রয়কেন্দ্রগুলোও হামলা থেকে বাদ পড়েনি।’

আমিন আওয়াদ বলেন, ‘যুদ্ধের ধ্বংসাত্মক প্রভাবের প্রতিক্রিয়া জানাতে আমাদের অক্লান্ত প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে, দৃঢ়ভাবে এবং অবিচলিতভাবে। তবে সর্বোপরি আমাদের শান্তি দরকার। যুদ্ধ এখনই শেষ হওয়া উচিত।’

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক আগ্রাসন শুরু করে রাশিয়া। দেশটির রাজধানী কিয়েভসহ বিভিন্ন শহরে গোলা ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা শুরু করে রুশ বাহিনী।

যুদ্ধে দুই পক্ষেরই ব্যাপক প্রাণহানির খবর পাওয়া যাচ্ছে। জাতিসংঘ বলছে, যুদ্ধের কারণে ইতোমধ্যে ইউক্রেন ছেড়ে অন্য দেশে আশ্রয় নিয়েছেন ৫০ লাখেরও বেশি মানুষ। আর অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত হয়েছেন ৮০ লাখের বেশি লোক।

সূত্র জানায়, রাশিয়ার সীমান্তবর্তী ইউক্রেনের শহরগুলো ঘিরে রেখেছে রুশ সামরিক বাহিনী; হামলা চলছে ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভেও। রাশিয়ার গোলা ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় খারকিভ শহরেও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানির খবর পাওয়া যাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x