ডেস্ক রিপোর্ট: রবিবার, ১৫ জানুয়ারি,২০২৩ খ্রি. জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০২ তম জন্মোৎসব উপলক্ষ্যে জানিপপ কর্তৃক আয়োজিত জুম ওয়েবিনারে এক বিশেষ সেমিনারের ৫৩০তম পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

 

জানিপপ-এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রফেসর ড.মেজর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ, বিএনসিসিও’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন জাতীয় শিক্ষাক্রম ও টেক্সটবুক বোর্ড এর মেম্বার অধ্যাপক ড. এ কে এম রিয়াজুল হাসান এবং গেস্ট অব অনার হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন,রংপুর মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আর্জিনা খানম।

 

সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন, মালয়েশিয়া থেকে পিএইচডি গবেষক কাজী ফারজানা ইয়াসমিন, কুমিল্লার লাকসাম থেকে প্রভাষক মোঃ কামাল উদ্দিন,জানিপপ’র ন্যাশনাল ভলেন্টিয়ার ওয়াহিদ ফেরদৌস, বগুড়া থেকে হ্যাপি আক্তার ও গোপালগঞ্জস্হ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএইচডি গবেষক প্রশান্ত কুমার সরকার।

 

সভাপতির বক্তৃতায় ড.কলিমউল্লাহ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন,বঙ্গবন্ধু একজন বিরলপ্রজ মানবিক ও রাজনৈতিক বিশ্বনেতা।

 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. এ কে এম রিয়াজুল হাসান বলেন, প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের জন্য কবি নির্মলেন্দু গুণের ‘মুজিব মানেই মুক্তি’ কবিতাটি সংযুক্ত করা হয়েছে। বিতর্কিত ও বিশ্বাসঘাতক সানাউল হকের লেখা বাদ দেয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে ড. রিয়াজুল হাসান আরো বলেন, মরহুম স্পিকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে খুনের খবর বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে সানাউল হককে ফোন করে জানান এবং শেখ হাসিনা ও অন্যদের জার্মানির সীমান্ত পর্যন্ত পৌঁছে দিতে অনুরোধ করেন।ড. রিয়াজ, হুমায়ুন রশীদ চৌধুরীর লেখা উদ্ধৃত করে বলেন, ‘সানাউল হক তাতে রাজি হলেন না। তিনি আরও লিখেছেন, সানাউল হকের কথায় মনে হচ্ছিল- তিনি শেখ হাসিনাসহ তার পরিবারের সদস্যদের পারলে তখনই বাড়ি থেকে বের করে দেন।’ দেরিতে হলেও সেই বিশ্বাসঘাতক সানাউল হকের লেখা প্রাথমিক শিক্ষাক্রম থেকে বাদ দেয়া গেল।

 

বক্তব্যে শেষাংশে জাতির কথাশিল্পী শওকত ওসমান স্মৃতি পরিষদ এর সাধারণ সম্পাদক ড. দিপু সিদ্দিকীর আহবানের জবাবে অধ্যাপক ড.রিয়াজ, অমর কথাশিল্পী শওকত ওসমানের শিশুতোষ লেখা প্রাথমিক শিক্ষাক্রমে সংযুক্ত করার আশ্বাস দেন।

 

সেমিনারে বক্তারা ৭৫ সালের ১৫ আগস্ট খুনিচক্র শিশুপুত্র রাসেলসহ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। সে সময় বেলজিয়ামের রাষ্ট্রদূত সানাউল হক বঙ্গবন্ধুর কন্যাদ্বয় এর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার পরিবর্তে খুনিদের পক্ষে অবস্থান নেয়। দেরিতে হলেও কুখ্যাত সানাউল হকের লেখা বাদ দিয়ে ‘মুজিব মানেই মুক্তি’ কবিতাটি সংযোজন করার জন্য অধ্যাপক ড. রিয়াজুল হাসান এবং জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডকে অভিনন্দন এবং কৃতজ্ঞতা জানান।

 

সেমিনারটি সঞ্চালনা করেন বঙ্গবন্ধু কমিশনের আন্তর্জাতিক মিডিয়াসেল এর কার্যকরী সদস্য ও আমেরিকার মিলেনিয়াম টিভি’র কান্ট্রি ডিরেক্টর এবং ডেইলি প্রেসওয়াচ সম্পাদক ড. দিপু সিদ্দিকী।

সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে সংযুক্ত ছিলেন,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত প্রকৌশলী শাফিউল বাশার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে আইডিয়াল কিডস কেয়ার স্কুলের ভাইস প্রিন্সিপাল ডা. বায়েজিদা ফারজানা এবং রাজশাহী থেকে ডা. মাহবুবুল হক ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x