অভিবাসনের জন্য কানাডা জনপ্রিয় একটি স্থান। প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে ক্যানাডাতে শিক্ষার্থী এবং চাকুরীজীবীরা অভিবাসনের সুযোগ পান। উত্তর আমেরিকায় যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার মধ্যে তুলনা করলে বেশির ভাগ মানুষ কানাডা তেই যেতে আগ্রহী সেখানকার উন্নত জীবন ব্যাবস্থার কারনে। কানাডার প্রতিটি শহরে বাংলাদেশি পরিবার রয়েছে এবং তাদের সংগঠন রয়েছে। বাংলাদেশ থেকে উচ্চশিক্ষা কিংবা ভ্রমণ কিংবা অভিবাসনে কানাডায় যাওয়ার বিষয়ে আজকের প্রতিবেদন।

ভিসা (Visa) –
বিদেশে উচ্চশিক্ষা, চাকরি অথবা ব্যবসা-বাণিজ্য যে ক্ষেত্রে যেতে চান আপনাকে প্রথমে কানাডার ভিসা গ্রহন করতে হবে। আপনি যদি https://www.canada.ca/…/immigration-refugees এই ওয়েবসাইট এ যান তাহলে ভিসা সংক্রান্ত সকল তথ্য একত্রে পেয়ে যাবেন।

টেম্পোরারি ভিসা (Temporary Visa)
কানাডা তে টেম্পোরারি ভিসা সাধারণত তাদেরকে দেয়া হয় যারা অল্প সময়ের জন্য উচ্চশিক্ষা, কাজ অথবা ভ্রমণের জন্য আসেন। আপনি ভ্রমণের আগে অবশ্যই যাচাই করে নিবেন আপনার কোন ভিসা প্রয়োজন।

ইন্টারন্যাশনাল এক্সপেরিয়েন্স কানাডা (International Experience Canada)
ইন্টারন্যাশনাল এক্সপেরিয়েন্স কানাডা একটি বিশেষ প্রোগ্রাম যেটি কানাডা সরকার ১৮-৩৫ বছরের ব্যক্তিদের চাকরির জন্য তৈরি করেছেন। এই প্রোগ্রামটি তিন ভাগে বিভক্ত। প্রথমত ওয়ার্কিং হলিডে পারমিট (Working Holiday permit) প্রোগ্রামের মাধ্যমে আপনি ১ থেকে ২ বছর কানাডাতে চাকরি করতে পারবেন। দ্বিতীয়ত ইয়াং প্রফেশনালস (Young Professionals) প্রোগ্রামটি আপনাকে কানাডা তে চাকরি করার সুযোগ করে দিবে যদি আপনার ১-২ বছরের চাকরির অভিজ্ঞতা থাকে। অবশেষে ইন্টারন্যাশনাল কো-অপ ইন্টার্নশিপ (International Co-op Internship) প্রোগ্রামের মাধ্যমে আপনি কানাডাতে আসতে পারবেন ৬ মাস কিংবা ১ বছরের ইন্টার্নশিপের জন্য।

এক্সপ্রেস এন্ট্রি (Express Entry)
এক্সপ্রেস এন্ট্রি একটি অনলাইন আবেদনের মাধ্যমে যেটার সাহায্যে আবেদনকারীরা কানাডা তে স্থায়ী নাগরিকত্ব লাভের জন্য আবেদন করে থাকেন। এটি ৩ ধরনের হয়ে থাকে।ফেডারেল স্কিলড ওয়ার্কার প্রোগ্রাম, ফেডারেল স্কিলড ট্রেডস প্রোগ্রাম এবং ক্যানাডিয়ান এক্সপেরিয়েন্স ক্লাস। আবেদন করতে হবে সম্পূর্ণ অনলাইনে। আবেদনের পর একটি নিমন্ত্রণ আসবে, তার ৬০ দিন সময় পাওয়া যাবে অভিবাসনের জন্য আরেকটি আবেদন করার।

ফেডারেল স্কিলড ওয়ার্কার ক্লাস (Federal Skilled Worker Class)-
ভিসার এই অধ্যায়টি এমনভাবে সাজানো হয়েছে যে আবেদনকারীর কিছু নির্দিষ্ট দক্ষতা এবং কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে যেটি কানাডার চাকরির বাজারে প্রয়োজনীয়। প্রথমত রয়েছে ফেডারেল স্কিলড ট্রেডস প্রোগ্রাম যার আওতায় আসবে সে সকল আবেদনকারী যাদের দুই বছরের চাকরির অভিজ্ঞতা আছে। দ্বিতীয়ত রয়েছে কানাডা এক্সপেরিয়েন্স ক্লাস, এই প্রোগ্রামটি মূলত অভিবাসন দিয়ে থাকে সেসকল চাকরিজীবীদের যাদের কানাডাতেই এক বছরের কাজের অভিজ্ঞতা আছে। তৃতীয়ত বিজনেস ইমিগ্রেশন প্রোগ্রাম কানাডা বাহিরে থেকে ব্যবসায়ী এবং উদ্যোক্তাদের আকর্ষণীয় চাকরির সুযোগ করে দেয়।

ওয়ার্ক পারমিট (Work Permit)
কানাডা দুই ধরনের ওয়ার্ক পারমিট আছে। একটি ওপেন এবং আরেকটি ক্লোজড। ক্লোজড ওয়ার্ক পারমিট আপনাকে কিছু নির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠান সাথে কাজ করতে দিবে।। অন্যথায় ওপেন ওয়ার্ক পারমিট আপনাকে কানাডা যেকোনো জায়গায় চাকরি করার সুযোগ দিবে। দুই ক্ষেত্রেই আপনাকে যথাযথ কাগজপত্র জমা দিতে হবে।

ইন্সুরেন্স (Insurance)
কানাডা তার চিকিৎসা সেবার জন্য বিশ্বব্যাপী পরিচিত। তবে চিকিৎসা সেবা সংক্রান্ত আইন কানুন গুলো কানাডা বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য ভিন্ন ভিন্ন। সুতরাং আপনি যদি কানাডার নাগরিক হয়ে থাকেন অথবা হতে চান আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে ক্যানাডার কিছু অঙ্গরাজ্যে আপনাকে মেডিকেল ইন্সুরেন্স এর জন্য তিন মাসের অধিক সময় অপেক্ষা করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনার চিকিৎসা ব্যাঘাত ঘটবে।

এই বিষয়টি মাথায় রেখেই আপনি কানাডার কোন অঙ্গরাজ্যে অভিবাসনের জন্য যাবেন তা যাচাই করে নিতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x