টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় দিনে আজ শনিবার বাদ আছর শতাধিক যৌতুকবিহীন বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ব ইজতেমায় বিশেষ আকর্ষণ ছিল এই বিয়ে।
বিশ্ব ইজতেমার মিডিয়া সমন্বয়কারী মাওলানা জহির ইবনে মুসলিম একথা জানিয়েছেন।
ময়দানের পশ্চিম-উত্তর দিকে দোয়া মঞ্চ থেকে এ বিয়ে পড়ান ভারতের মাওলানা মো. জোহায়রুল হাসান। হজরত ফাতেমা (রা.) ও হজরত আলী (রা.) বিয়ের দেনমোহর অনুসারে বিনা যৌতুকে মোহরে ফাতেমি প্রদানের মাধ্যমে শতাধিক বিয়ে সম্পন্ন হয়।
বিয়ের আগে বাদ আসর হাফেজ মাওলানা জোবায়ের বিয়ের খুতবা প্রদান করেন। বয়ান শেষে বর-কনের অভিভাবকদের সম্মতিতে বরের উপস্থিতিতে এ বিয়ে পড়ানো হয়। বিয়ে শেষে উপস্থিত দম্পতিদের স্বজন ও মুসল্লিদের মধ্যে খুরমা বিতরণ করা হয়।
এদিকে প্রচন্ড শীত ও বার্ধক্যজনিত কারণে বিশ্ব ইজতেমার ময়দানে সাত মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুর পর্যন্ত বার্ধক্যজনিত ও শ্বাসকষ্টজনিত কারণে তাদের মৃত্যু হয়।
টঙ্গী পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশরাফুল ইসলাম একথা জানিয়েছেন। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে সিলেটের জৈন্তাপুর থানার হেমুবুটে গ্রামের মো. নূরুল হক (৬৩) শ্বাসকষ্টজনিত কারণে মৃত্যুবরণ করেন। একই সময়ে গাজীপুর মহানগরীর ভুরুলিয়া এলাকার আবু তৈয়ব ওরফে আবু তালেব (৯০) বার্ধক্যজনিত কারণে মৃত্যুবরণ করেন।
শুক্রবার ভোরে বার্ধক্যজনিত কারণে মৃত্যুবরণ করেন ঢাকার কেরানীগঞ্জের হাজি মোহাম্মদ হাবিবউল্ল্যাহ হবি (৬৮)। সন্ধ্যায় মৃত্যুবরণ করেন মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর থানার মধ্য কামার গ্রামের আক্কাস আলী সিকদার (৫০)। এছাড়া রাত আড়াইটার দিকে মৃত্যুবরণ করেন খুলনার ডুমুরিয়া থানার মলমলিয়া গ্রামের মোফাজ্জল হোসেন খান (৭০)। বার্ধক্যজনিত কারণে শনিবার ভোর ৫টার দিকে মৃত্যুবরণ করেন নরসিংদীর মনোহরদী থানার মাছিমপুর গ্রামের হাবিবুর রহমান হবি (৭০)। এরপর সকাল সাড়ে ৬টায় মৃত্যুবরণ করেন চট্টগ্রাম সদর থানার রাওজান এলাকার আব্দুল রাজ্জাক (৭০)।
ওসি আশরাফুল বলেন, ইজতেমা ময়দানে তাদের জানাজা সম্পন্ন হয়। পরে তাদের মরদেহ নিজ নিজ বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।
এদিকে, বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের দ্বিতীয় দিন শনিবারও তুরাগ তীরে মুসল্লিদের ঢল অব্যাহত রয়েছে। আজ বাদ ফজর থেকে ইজতেমা মাঠে আখলাক, ঈমান ও কোরআন-হাদিসের আলোকে বয়ান চলছে। দেশ-বিদেশের খ্যাতনামা আলেমরা বিভিন্ন বিষয়ে বয়ান করছেন। ইবাদত-বয়ানে মশগুল হয়ে আছেন মুসল্লিরা।
ইজতেমা আয়োজক কমিটির মুরুব্বি প্রকৌশলী মাহফুজ জানান, প্রথম পর্বের বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় দিনের শুরুতে বয়ান করেন মাওলানা খোরশিদুল হক।
এছাড়াও বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের দ্বিতীয় দিনে গাজীপুর জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত ১৫টি অভিযান পরিচালনা করেছেন। এসব অভিযানে ১৪ মামলায় ৫৯ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।
গাজীপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) আনিসুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, শনিবার সকাল থেকে বিকাল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত ইজতেমা মাঠের আশপাশে এসব অভিযান পরিচালনা করা হয়।
ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসেন জানান, বেশি দামে খাবার বিক্রি এবং অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার পরিবেশন করার অভিযোগে সাত অভিযানে সাত জনকে ৩৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এদের মধ্যে আল মদিনা হোটেলকে ৮ হাজার, হোটেল বাগেরহাটকে ৫হাজার, আল্লাহর দান হোটেলকে ৫ হাজার, হোটেল কাতারকে ৩ হাজার, হোটেল হেভেনকে ৩ হাজার, বগুড়ার দইকে ১০ হাজার ও একটি কম্বলের দোকানকে ৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এ সময় প্রায় ৩০ কেজি বাসি খাবার ও দই বিনষ্ট করে সতর্ক করা হয়েছে।
অপরদিকে, ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সায়েম ইমরান জানান, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের মুন্নু গেট পর্যন্ত আশপাশের এলাকায় দোকানে অভিযান পরিচালনা করে তিন জনকে এক হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। খাবার ও অন্যান্য পণ্যের দাম বেশি রাখায় তাদেরকে জরিমানা করা হয়। বোর্ডবাজার এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাইমিনুল ইসলামের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন হোটেল এবং রেস্তোরাঁয় চার জনকে পাঁচ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করে।
তিনি আরও জানান, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার বিক্রি না করা এবং অতিরিক্ত দামে পণ্য বিক্রি না করার জন্য ইজতেমা এলাকার অন্যান্য হোটেল মালিক, খাবার ও ফল বিক্রেতাদেরকে সচেতন করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।বাসস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x