১৯৫২ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি ব্রিটেনের রাজা ষষ্ঠ জর্জ ঘুমের মধ্যে মারা গেলে কেনিয়া সফররত তার জ্যেষ্ঠ কন্যা প্রিন্সেস এলিজাবেথ তাৎক্ষণিকভাবে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ হন।

কিংস কলেজ লন্ডনের সাংবিধানিক আইনের অধ্যাপক রবার্ট ব্ল্যাকবার্ন বলেছেন, ‘রানি এলিজাবেথের মৃত্যুতে এবং রাজা তৃতীয় চার্লসের সিংহাসন গ্রহণের সময় একই প্রক্রিয়া ঘটবে। ‘

রানির রেকর্ড গড়া দীর্ঘ রাজত্বের পরে, যুক্তরাজ্য এবং কমনওয়েলথ দেশগুলো জুড়ে জাতীয় জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে তার নাম, ছবি এবং প্রতীকগুলো তুলে নিতে অনেক সময় লাগবে। এগুলোর মধ্যে কিছু জিনিস আছে যা পরিবর্তন করতে হবে।

পতাকা
যুক্তরাজ্য জুড়ে থানার বাইরে উড়তে থাকা পতাকা থেকে শুরু করে একজন জেনারেল নৌবাহিনীর কোনো জাহাজে থাকার সময় ব্যবহৃত পতাকা পর্যন্ত আদ্যক্ষর দিয়ে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ লেখা হাজার হাজার পতাকা বদল করতে হবে। সামরিক রেজিমেন্টগুলোতে ‘কুইনস কালার’ পতাকা উড়ায়, যার মধ্যে অনেকগুলোতে থাকে সোনালি এমব্রয়ডারি করা রানির নাম ও পদবি। ফায়ার সার্ভিসের পতাকাতেও থাকে তার আদ্যক্ষর। অস্ট্রেলিয়া, কানাডা এবং নিউজিল্যান্ডসহ যে দেশগুলোতে রানি নিয়মতান্ত্রিক রাষ্ট্রপ্রধান ছিলেন সেখানে ব্যবহৃত হয় এক বিশেষ পতাকা। পতাকা বিশেষজ্ঞরা একে ‘ই পতাকা’ বলে থাকেন। এটি হচ্ছে রানির ‘ব্যক্তিগত পতাকা। ‘ রানি যখন ওই দেশগুলো সফর করতেন শুধু তখনই তা ব্যবহার করা হয়।

ব্যাংক নোট ও মুদ্রা
রানীর মুখাবয়বসহ সাড়ে ৪০০ কোটি পাউন্ড স্টার্লিং নোট প্রচলিত রয়েছে বাজারে। সব মূল্যমানের নোট মিলিয়ে এর দাম ৮ হাজার কোটি পাউন্ড। নতুন রাজার ছবিযুক্ত নোট দিয়ে এগুলো প্রতিস্থাপন করতে কমপক্ষে ২ বছর সময় লাগতে পারে। সর্বশেষ ৫০ পাউন্ডের সিন্থেটিক নোট ইস্যু করার সময় পুরনোগুলো প্রত্যাহার এবং নতুন নোট সরবরাহে ব্যাঙ্ক অব ইংল্যান্ডের ১৬ মাস সময় লেগেছিল।

রানি যখন ১৯৫২ সালে সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হন, তখন ব্যাঙ্কনোটে কোনো রাজা-রানির ছবি থাকত না। তা ১৯৬০ সালে পরিবর্তিত হয়। সে বছর নতুন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মুখমণ্ডলের ছবি ১ পাউন্ডের ব্যাঙ্কনোটে শোভা পায়। নোট ডিজাইনার রবার্ট অস্টিনের আঁকা রানির মুখের ছবিকে কেউ কেউ খুব কঠিন চেহারা বলে সমালোচনা করেছিলেন। নতুন রাজারকে একটি ছবির বিষয়ে সরকারকে বাকিংহাম প্যালেসের সঙ্গে একমত হতে হবে। কানাডার কিছু ২০ ডলারের ব্যাঙ্কনোটে, নিউজিল্যান্ডের ধাতব মুদ্রায় এবং ইস্টার্ন ক্যারিবিয়ান সেন্ট্রাল ব্যাংকের সব মুদ্রা ও নোটে রানির ছবি রয়েছে। কমনওয়েলথভুক্ত আরো কিছু দেশে এরকম দেখা যাবে।

জাতীয় সঙ্গীত
সবচেয়ে সোজাসাপ্টা পরিবর্তনগুলোর মধ্যে একটি (অন্তত তত্ত্বগতভাবে) হবে জাতীয় সঙ্গীতের শব্দগুলোকে বদলানো। ‘ঈশ্বর আমাদের করুণাময়ী রানিকে রক্ষা করুন’ হয়ে যাবে ‘ঈশ্বর আমাদের করুণাময় রাজাকে রক্ষা করুন। ‘ যদিও এক সঙ্গে বিশাল জনতার আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে নতুন সংস্করণটি গাইতে অভ্যস্ত হতে সময় লাগতে পারে। বর্তমান সংস্করণটি চলছে সেই ১৭৪৫ সাল থেকে। তার আগ পর্যন্ত ছিল, ‘ ঈশ্বর আমাদের মহান জর্জকে রক্ষা করুন, আমাদের মহান রাজা দীর্ঘজীবী হোন, ঈশ্বর রাজাকে রক্ষা করুন। ’

প্রার্থনা
রানি ছিলেন পদাধিকারবলে চার্চ অব ইংল্যান্ডের ‘ধর্মবিশ্বাসের রক্ষক এবং সর্বোচ্চ গভর্নর। ‘ ১৬৬২ সাল থেকে প্রচলিত ‘বুক অব কমন প্রেয়ার’ নামের প্রার্থনার বইতে রানির জন্য প্রার্থনা করা হয়েছে। এবার রাজার জন্য ঈশ্বরের করুণা কামনা করে প্রার্থনা করার জন্য কিছু শব্দ সংশোধন করা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

ডাকবাক্স ও টিকিট
ব্রিটিশ র‌য়্যাল মেইলে ডাকবাক্সে যে ইআর প্রতীক থাকে তা বদলানোর সম্ভাবনা নেই। ৭০ বছর হয়ে গেলেও রাজা ষষ্ঠ জর্জের জিআর প্রতীকের অনেক ডাক বাক্স বহাল তবিয়তে ব্যবহারে রয়ে গেছে। তবে ডাক বিভাগ ডাকটিকিটের নকশা বদলাবে। নতুন রাজার মাথা ব্যবহৃত হবে রানির বদলে।

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x