একাত্তরে বাংলাদেশের নিরস্ত্র মানুষের ওপর পাকিস্তানের হানাদার বাহিনীর নির্মম হত্যাযজ্ঞকে ‘গণহত্যা’ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে আন্তর্জাতিক সংস্থা জেনোসাইড ওয়াচ।

পাকিস্তানিদের ওই বর্বরতার ৫০ বছর পূর্তিতে জেনোসাইড ওয়াচের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি গ্রেগরি এইচ স্ট্যানটন বৃহম্পতিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) তাদের ওয়েবসাইটে এই ঘোষণা দেন।

এ ঘোষণায় তিনি বলেন, ‘জেনোসাইড ওয়াচ এই স্বীকৃতি দিচ্ছে যে, পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বাঙালিদের ওপর যেসব অপরাধ করেছে, তার মধ্যে ছিল জোনোসাইড, মানবতাবিরোধী অপরাধ এবং যুদ্ধাপরাধ।’

সেই সঙ্গে সংস্থাটি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও পাকিস্তানসহ জাতিসংঘের সব সদস্য দেশকে পাকিস্তানি বাহিনীর করা সেসব অপরাধকে জোনোসাইড, মানবতাবিরোধী অপরাধ এবং যুদ্ধাপরাধ’হিসেবে স্বীকার করে নিতে আহ্বান জানান।

এই ঘোষণায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারক সংগঠন ‘পাকিস্তানি দালাল রুখবে তারুণ্য’ আনন্দ প্রকাশ করেছে। সেই সঙ্গে সংগঠনটি আন্তর্জাতিক সংস্থা জেনোসাইড ওয়াচের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে।

এই স্বীকৃতির নেপথ্যে কাজ করা শহীদ সাংবাদিক সিরাজুদ্দীন হোসেনের ছেলে তৌহিদ রেজা নূরকে অভিনন্দন জানানো পাশাপাশি তার প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছে পাকিস্তানি দালাল রুখবে তারুণ্য।

এ বিষয়ে সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হামজা রহমান অন্তর বলেন, ‘আমরা খুবই আনন্দিত ও আবেগ আপ্লুত এই খবরে। এটি নিঃসন্দেহে পাকিস্তান কর্তৃক বাঙালির ওপর একাত্তরে যে জেনোসাইড ঘটানো হয়েছিল সেই নৃশংসতার বিচার তরান্বিত করবে। আমরা পাকিস্তান রাষ্ট্র ও সেই সব গণহত্যাকারীদের বিচার দাবি করছি।’

বাঙালি জাতির মুক্তির আন্দোলনকে শ্বাসরোধ করতে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের রাতে এ দেশের নিরস্ত্র মানুষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। ‘অপারেশন সার্চলাইট’নামের সেই অভিযানে কালরাতের প্রথম প্রহরে তৎকালীন পূব-পাকিস্তানের ঢাকায় চালানো হয় গণহত্যা। ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার আগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে যান; শুরু হয় বাঙালির প্রতিরোধ যুদ্ধ।

নয় মাসের যুদ্ধে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ৩০ লাখ সাধারণ মানুষকে নির্বিচারে হত্যা করে। এসময় পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর অত্যাচারে এক কোটি মানুষ পাশের দেশ ভারতে আশ্রয় নেয়।

পাকিস্তানি সেনাবাহিনী শহর থেকে গ্রামে সাধারণ মানুষের ঘর বাড়ি আগুনে পুড়িয়ে দেয় ও লুটপাট করে। এসময় তারা দুই লাখের বেশি নারীকে ধর্ষণ করে। যাকে জেনোসাইড বা মানবতাবিরোধী অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করে স্বীকৃতি দিয়েছ গণহত্যা নিয়ে কাজ করা আন্তর্জাতিক সংস্থা ‘জেনোসাইড ওয়াচ’।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x