26 November, 2020
শিরোনাম

করোনায় মৃত রোগীর ফুসফুস দেখে বিস্মিত চিকিৎসকরা

 29 Oct, 2020   84 বার দেখা হয়েছে

 নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রিন্ট

করোনাভাইরাসের আক্রমণ ফুসফুসকেও কী ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করে, তার প্রমাণ মিলল ভারতের কর্নাটকে কোভিডে মৃত এক বৃদ্ধের ময়না-তদন্তে। ইয়েড়াভানাহাল্লির অক্সফোর্ড মেডিক্যাল কলেজে ৬২ বছরের ওই রোগীর ময়না-তদন্তের পরে চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, চামড়ার বলের মতো শক্ত হয়ে গিয়েছিল তাঁর ফুসফুস। এ ছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গও।

এখানেই শেষ নয়, ভারতের কর্ণাটকের বাসিন্দা ওই ব্যক্তির শরীরে মৃত্যুর ১৮ ঘণ্টার পরেও মিলেছে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব। দেখা গেছে, তার নাসারন্ধ্র ও গলা থেকে সংগৃহীত নমুনার ভেতরে রয়ে গেছে কোভিড-১৯ সংক্রমণের চিহ্ন।

আনন্দবাজারের প্রতিবেদন বলছে, এই প্রথম কর্ণাটকে কোনো করোনা রোগীর ময়নাতদন্ত হলো।

ময়নাতদন্তটি করেছেন অক্সফোর্ড মেডিকেল কলেজের চিকিৎসক ড. দীনেশ রাও। গত ১০ অক্টোবর এই ময়নাতদন্ত করা হয়। এতে সময় লেগে ১ ঘণ্টা ১০ মিনিট।

ড. দীনেশ রাও জানান, মৃত ব্যক্তির ফুসফুসের বায়ুথলি ফেটে গিয়েছিল। এবং রক্তনালী জমাট বেধে গিয়েছিল।

মৃত ব্যক্তির নাক ও গলার নমুনায় করোনার উপস্থিতি ধরা পড়লেও ত্বকে ভাইরাসের অস্তিত্ব মেলেনি। ড. রাও বলছেন, কোভিড রোগীর মৃতদেহ সংক্রামক হতে পারে। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে ওই মৃতের ত্বকে ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি।

ওই ব্যক্তির পরিবারের অনুমতি নিয়েই ময়নাতদন্ত করেন চিকিৎসকরা। তিনি যখন মারা যান, তখন তার পরিবারের সদস্যরা কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন। সেই জন্য তারা দেহ দাবি করেননি।

ড. রাও আরও জানান, যুক্তরাষ্ট্র ও ইতালিতে কোভিড রোগীদের ময়নাতদন্তে যা দেখা গেছে আমার পর্যবেক্ষণ তার থেকে আলাদা। যা থেকে প্রমাণ হয়, ভারতে এই ভাইরাসের চরিত্র ভিন্ন।

শিগগিরই এই ময়নাতদন্তের পূর্ণ বিবরণ কোনো জার্নালে প্রকাশ করার পরিকল্পনা করছেন এই চিকিৎসক।

সম্পর্কিত খবর
সব খবর
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | বাংলা৫২নিউজ.কম
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি এবং অপরাধ