Tuesday , 25 June 2024
শিরোনাম

আয়কর গণনার বেসিক

বাংলাদেশের আয়কর ব্যবস্থা প্রচলন হয়েছিল ব্রিটিশ এবং পাকিস্তান আমলেই। পর্যায়ক্রমে, সর্বাধিক রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যে বিভিন্ন মানদণ্ডের ভিত্তিতে সিস্টেমটি পরিশোধন করা হয়েছে, যাতে সরকার এই রাজস্ব রাষ্ট্রের সর্বাধিক সামাজিক কল্যাণে ব্যবহার করতে পারে।

বিভিন্ন বিষয়ে কর আরোপ করা হয়। করগুলোর একটি প্রধান ধরন হল আয়কর, যা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আয়কর আইন ২০২৩, নতুনভাবে ২০২৩ সালের জুন মাসে প্রয়োগ করা হয়েছে এবং এতে আয়করের সমস্ত বিধান, নিয়ম এবং প্রবিধান এবং কর কর্তৃপক্ষের ক্ষমতা ও কর্তব্যগুলি ব্যাখ্যা করা হয়েছে৷ রাষ্ট্রের একজন সুনাগরিক হিসাবে আমাদের অবশ্যই দায়বদ্ধ করের হিসাব করে ট্যাক্স রিটার্ন জমা দিতে হবে।

প্রথমত, আমাদের আয়ের বছর, মূল্যায়ন বছর এবং আবাসিক অবস্থা নির্ধারণ করতে হবে। আয়ের বছর ১ লা জুলাই থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত গণনা করা হয়। মূল্যায়ন বছর হল আয় বছরের পরবর্তী বছর। আবাসিক অবস্থা দেশে বসবাসকারী দিনগুলি ব্যবহার করে হিসাব করা হয়। এটি আমাদের নির্দিষ্ট বছরের জন্য করযোগ্য আয় এবং আমাদের আয়ের জন্য ব্যবহার করা করের হার নির্ধারণ করতে সহায়তা করে।

দ্বিতীয়ত,আয়কর পরিপত্র ২০২৩-২৪-এ যেমন উল্লেখ করা হয়েছে, পুরুষদের জন্য প্রথম করমুক্ত আয়সীমা হল ৩৫০,০০০ টাকা, মহিলা এবং বয়স্ক নাগরিকদের জন্য (যাদের বয়স ৬৫ বছরের বেশি) ৪০০,০০০ টাকা, তৃতীয় লিঙ্গ এবং প্রতিবন্ধীদের জন্য ৫০০,০০০ টাকা এবং প্রতিবন্ধী, প্রতিবন্ধী বা নির্ভরশীল শিশুদের পিতামাতা বা আইনি অভিভাবকদের জন্য প্রতিটি শিশুর জন্য ৫০,০০০ টাকা করে বেশি। বাকি সবার জন্য এই সীমা একই। অনাবাসীদের জন্য, করের হার ৩০ শতাংশ।

তৃতীয়ত, নেট দায়বদ্ধ কর পেতে আমাদের করযোগ্য আয় থেকে যেকোন ছাড় বা কর রেয়াত (রিবেট) কেটে নিতে হবে। রিবেট শুধুমাত্র আবাসিক এবং অনাবাসিক বাংলাদেশীদের জন্য প্রযোগ্য। করযোগ্য আয়ের ৩ শতাংশ, বিনিয়োগের ১৫ শতাংশ অথবা কেবলমাত্র ১০ লক্ষ টাকা এর মধ্যে যার মান সর্বনিম্ন, তাই রিবেট হিসেবে গণ্য হবে।

চতুর্থত, সারচার্জ গণনা করতে হবে এবং নেট ট্যাক্স দায় যোগ করতে হবে। সারচার্জ তিন প্রকার, ৪ কোটি টাকার উপরে নিট সম্পদের জন্য সারচার্জ, তামাক উৎপাদন ব্যবসা থেকে যেকোনো আয়ের জন্য ২.৫ শতাংশ সারচার্জ এবং একাধিক মোটর গাড়ির মালিকের জন্য পরিবেশ সুরক্ষা সারচার্জ। দুই বা ততোধিক গাড়ির মধ্যে একটি উচ্চ সিসি বা কিলোওয়াটের গাড়ির উপর পরিবেশগত সারচার্জ আরোপ করা হয়।

সবশেষে, আয়কর হিসাব করার ক্ষেত্রে, আমরা অগ্রিম কর, উৎসে কর কর্তন (টিডিএস), বা উইথহোল্ডিং ট্যাক্স এবং ট্যাক্স রিফান্ড দাবি করে থাকি।

সরকার সময়সীমা না বাড়ালে ট্যাক্স রিটার্ন জমা দেওয়ার সাধারণ সময়সীমা ৩০ নভেম্বর। ট্যাক্স রিটার্ন জমা দেওয়ার পর ট্যাক্স দায় পরিশোধের শেষ তারিখ ৩০শে জুন।

লেখকঃ মো: সাজ্জাদ হোসেন শুভ
তৃতীয় বর্ষের ছাত্র
অ্যাকাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস
বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ প্রফেশনালস

Check Also

শিক্ষার্থীদের কর্মযোগ্যতা বৃদ্ধির আহ্বান শিক্ষামন্ত্রীর

দেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের কর্মযোগ্যতা বৃদ্ধিতে কার্যকর উদ্যোগ নিতে উপাচার্যদের আহবান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x