কক্সবাজারের চকরিয়া থানার ওসি মুহাম্মদ ওসমান গণির বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টা মামলার পলাতক আসামিকে নিয়ে নিজের জন্মদিন পালনের অভিযোগ উঠেছে।

মামলার পর থেকেই গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি আরহান মাহমুদ রুবেল ও মোহাম্মদ আলিফকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলে দাবি করে আসছিল পুলিশ।

তবে, তাদের উপস্থিতিতেই থানা ভবনে ওসির অফিসকক্ষে কেক কেটে ওসি ওসমানের জন্মদিন (২ মার্চ) উদযাপনের কিছু ছবি সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

ফেসবুকে নিজের ভেরিফাইড আইডি থেকে জন্মদিন উদযাপনের একটি ছবি পোস্ট করেন পলাতক আসামি আরহান মাহমুদ রুবেল। ছবিতে দেখা যায়, ওসি ওসমান গণি মাঝখানে দাঁড়িয়ে আছেন। তার বাম পাশে রুবেল। আসামি আলিফসহ অন্যরা ওসির মুখে কেক তুলে দিচ্ছেন।

অন্য ছবিতে দেখা যায়, ওসি নিজেও রুবেলকে কেক খাইয়ে দিচ্ছেন। রুবেলের সঙ্গে থাকা ১৪ জন যুবকও ওসির সঙ্গে ফটোসেশনে অংশ নেন।

আদালত ও মামলার বাদীর সূত্র জানায়, পূর্ব শক্রতা এবং ছাত্রলীগে নিজেদের প্রভাব ও আধিপত্য প্রতিষ্ঠাকে কেন্দ্র করে ২০১৯ সালের ২৯ এপ্রিল রাতে চকরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সাবেক সাধারণ সম্পাদক আরহান মাহমুদ রুবেলের নেতৃত্বে ২০-২২ জনের একটি দল কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সদস্য তারেকুল ইসলাম রাহিতকে কুপিয়ে জখম করেন। সে সময় তারেকুলের মোটরসাইকেলটিও ভাঙচুর করেন তারা। এ ঘটনায় তারেকুলের ছোট ভাই তানজীমুল ইসলাম বাদী হয়ে রুবেলকে প্রধান আসামি করে চকরিয়া থানায় ১০ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেন। মামলার ৬ নম্বর আসামি করা হয় মোহাম্মদ আলিফকে।

পরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এজাহারে উল্লেখ করা ১০ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে আদালত ১০ আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

ওসি ওসমান গণি বলেন, কার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট আছে আর কার বিরুদ্ধে নাই, সেটা তো আমরা জানি না। ওয়ারেন্ট যদি থেকে থাকে, আমরা তাদের ধরি। কারো কপালে তো ওয়ারেন্ট লেখা নাই। যদি তাদের নামে ওয়ারেন্ট থাকে, তাহলে গ্রেপ্তার করা হবে।

পরে বুধবার গভীর রাতে আরহান মাহমুদ রুবেলকে আটক করা হলেও তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। অভিযোগ ক্লোজড করা হয়েছে বলে জানান ওসি ওসমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x