30 November, 2020
শিরোনাম

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট যেসব সুবিধা পান

 06 Nov, 2020   62 বার দেখা হয়েছে

 নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রিন্ট

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে জয়ের পথে এগিয়ে চলেছেন ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেন। সবশেষ গুরুত্বপূর্ণ জর্জিয়া রাজ্যের পর পেনসিলভানিয়ায়ও ডোনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন তিনি। চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা হলেই ক্ষমতার মসনদে বসবেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট। চলুন দেখে নেওয়া যাক একজন মার্কিন প্রেসিডেন্ট রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে কি কি সুবিধা পান :

হোয়াইট হাউস: মার্কিন প্রেসিডেন্টের সরকারি বাসভবন। ৫৫ হাজার বর্গফুটের উপর নির্মিত ছ'তলা এই ভবনে ১৩২টি ঘর, ৩৫টি শৌচালয় এবং ২৮টি ফায়ারপ্লেস রয়েছে। এছাড়া বোলিং অ্যালি, সিনেমা হল, জগিং ট্র্যাক, সুইমিং পুল। ব্যক্তিগত সহায়কও প্রচুর।

ব্লেয়ার হাউস: প্রেসিডেন্টের সরকারি গেস্ট হাউস হোয়াউট হাউসের চেয়েও বড়। এর আয়তন ৭০ হাজার বর্গফুট।

ক্যাম্প ডেভিড: এটি হল পার্বত্য আবাস। মেরিল্যান্ডের পর্বতে ১২৮ একর জায়গার উপর নির্মিত এই ভবন। রুজভেল্ট থেকে শুরু করে প্রায় সব প্রেসিডেন্টই এখানে কখনও না কখনও থেকেছেন।

এয়ার ফোর্স ওয়ান: মার্কিন প্রেসিডেন্টের যাতায়াতের স্বার্থে ব্যবহৃত এই ব্যক্তিগত এয়ারক্রাফ্টে যে ধরনের ইলেকট্রনিক সামগ্রী রয়েছে। তা ইলেকট্রোম্যাগনেটিক পাল্‌স থেকে সুরক্ষিত রাখতে সক্ষম। কোনও ধরনের আক্রমণের হাত থেকে নিরাপদ রাখতেও বিশেষ ভাবে তৈরি হয়েছে এই যান। মাঝ-আকাশে জ্বালানি ফুরিয়ে গেলে ফের তা ভরে নেওয়া যায়।

মেরিন ওয়ান: সরকারি চপার এরই রকম চারটি হেলিকপ্টারের সঙ্গে ওড়ে। ইঞ্জিন বিকল হলেও ঘণ্টা ১৫০ মাইল গতিতে ওড়ার ক্ষমতা রাখে এই হেলিকপ্টার। আক্রমণ প্রতিহত করার যাবতীয় ব্যবস্থা রয়েছে এতে।

দ্য বিস্ট: যে লিমুজিনটি চড়ে প্রেসিডেন্ট ঘুরে বেড়ান, সেটিকে বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ গাড়ি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। গোলাগুলি তো বটেই, রাসায়নিক আক্রমণ ঠেকাতেও সক্ষম এই গাড়ি। পাঁচ স্তরীয় কাচ ও পলিকার্বোনেটের জানলা। অক্সিজেনের জোগান, অগ্নি মোকাবিলার ব্যবস্থা ছাড়াও এই গাড়িতে রয়েছে ব্লাড ব্যাঙ্ক।

সিক্রেট সার্ভিস: ২৪ ঘণ্টার নিরাপত্তা বাহিনী প্রেসিডেন্ট ও তার পরিবারের সুরক্ষা নিশ্চিত করে। সিক্রেট সার্ভিসের মতো দেশের প্রাচীনতম ফেডারেল গোয়েন্দা সংস্থা তাদের নিরাপত্তার দায়িত্বে।

বেতন: চার লক্ষ মার্কিন ডলার তার বেতন। এর উপর অবশ্য কর আছে। এর পাশাপাশি বিনোদন ভাতা হিসেবে ১৯ হাজার ডলার, অন্যান্য খরচ বাবদ বার্ষিক ৫০ হাজার ডলার এবং ১ লক্ষ ডলারের ভ্রমণ ভাতা বরাদ্দ, যার উপরে কোনও কর দিতে হয় না। অবসরের পরেও দু'লক্ষ মার্কিন ডলার বার্ষিক পেনশন পান সাবেক প্রেসিডেন্টরা। তার মৃত্যুর পর স্ত্রী বিধবা ভাতা হিসেবে পান বার্ষিক ১ লক্ষ ডলার।

সূত্র : এই সময়।

সম্পর্কিত খবর
সব খবর
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | বাংলা৫২নিউজ.কম
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি এবং অপরাধ