ঢাকাই সিনেমার অন্যতম জনপ্রিয় দম্পতি ওমর সানী ও মৌসুমীর ২৭ বছরের সংসারে টানাপড়েন চলছে! চিত্রনায়ক জায়েদ খানকে নিয়ে তাদের পাল্টাপাল্টি বক্তব্যে এমনটাই স্পষ্ট হয়েছে। ওমর সানী মৌসুমীর সঙ্গে দূরত্বের কথা স্বীকারই করে নিয়েছেন।

স্ত্রী মৌসুমীর সঙ্গে সুখের সংসার ভাঙনের অভিযোগ তুলেছেন স্বামী ওমর সানি। এমন চাঞ্চল্যকর অভিযোগ লিখিত আকারে সানি জমাও দিয়েছেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতিতে।

যদিও জায়েদ খান ও ওমর সানীর মধ্যকার দ্বন্দ্ব-লড়াই ইস্যুতে জায়েদ খানের পক্ষ নিয়েছেন মৌসুমী। মৌসুমী জানান, জায়েদ তাকে কখনো অসম্মান করেনি, একসঙ্গে তাকে অনেক ভালো বলেও প্রশংসা করেন এই অভিনেত্রী।

ওমর সানী কেন এমন অভিযোগ করছেন সেটা তিনি বুঝতে পারছেন না মৌসুমী।

অডিওবার্তায় স্বামী ওমর সানিকে ‘ভাই’ সম্বোধন করে মৌসুমী বলেন, ‘আমি মনে করি, এখানে জায়েদের খুব একটা দোষ নেই। সে আমাকে শ্রদ্ধা করে। আমি তাকে স্নেহ করি। আরেকটা কথা বলতে চাই, আমাকে ছোট করার মধ্যে আমাদের… যাকে আমরা অনেক শ্রদ্ধা করে আসছি সেই ওমর সানি ভাই কেন এত আনন্দ পাচ্ছেন- সেটা আমি বুঝতে পারছি না।

আমার কোনো সমস্যা থাকলে অবশ্যই আমার সঙ্গে সমাধান করবে, সেটিই আমি আশা করি।’

মৌসুমীর এই বক্তব্যে গুঞ্জন শুরু হয়েছে, তবে কি ওমর সানি ও মৌসুমীর সংসার ভাঙনের পথে? স্বামীর বিপক্ষে গিয়ে তাকে নিয়ে মজা করে ‘ভাই’ ডেকে মৌসুমীর বক্তব্য অবাক করেছে অনেককে।

মৌসুমী যেন সরাসরি ওমর সানির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণাই করে দিলেন। মৌসুমীর মতো ফেসবুক লাইভে এসে এ নিয়ে নিজের অবস্থান তুলে ধরেন ওমর সানী। জানান, তার ছেলে ফারদিন ও মেয়ে ফাইজা এ বিষয়ে সব জানেন।

এবার এ বিষয়ে মুখ খুললেন ওমর সানী-মৌসুমী দম্পতির ছেলে ফারদিন। তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, “তার (জায়েদ খান) বিষয়ে সবাই মোটামুটি জানেন। শুধু আমার আম্মা না, উনি কমবেশি সবাইকে হ্যারাস করে থাকেন। উনি আমার আব্বুর সাথেও বেয়াদবি করেছেন, আম্মুর সাথেও করেছেন। কিন্তু আম্মু ভেবেছেন, বিষয়টা সিভিল ম্যাটার, এটা ফ্যামিলির মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকুক। আমরা নিজেরাই সলভ করবো।’

ফারদিনের ভাষ্যে, ‘আব্বু আম্মু দুজন চাচ্ছেন যেন বিষয়টা দ্রুত সমাধান হয়ে যায়। ছেলে হিসেবে আমি তো আব্বু আম্মু দুজনকেই চাইবো। দিন শেষে আমার চাওয়া যেন এটা দ্রুত সমাধান হয়।’

ফারদিন আরও বলেন, ‘সত্যি কথা হলো উনি (জায়েদ খান) ডিস্টার্ব করেন। আমি চাইলেও এখন প্রমাণ সবার সামনে হাজির করবো না। উনি আমার ব্যবসারও ক্ষতি করার চেষ্টা করেছেন। এগুলো হয়ত প্রমাণ দিতে পারব না। আমি জানি বিষয়গুলো, পাবলিকলি সব বলবোও না। তবে উনাকে নিয়ে চিন্তায় পড়ে যাবো এমন না। উনাকে এত গুরুত্ব দিচ্ছি না। জায়েদ খান আর রাস্তার ব্যাঙ এক কথা। তাই উনাকে নিয়ে ভাবছি না।’

এদিকে ওমর সানী বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতিতে জায়েদ খানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগে দাবি করেছেন, গত চার মাস ধরে জায়েদ খান তার স্ত্রী চিত্রনায়িকা মৌসুমীকে বিরক্ত করছেন। এই নিয়ে সাংগঠনিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তিনি।

ওমর সানী বলেন, ‘একই ছাদের নিচে বসবাস করেও দেড় মাসে ধরে আমাদের ফোনেও যোগাযোগ নেই। একই বাড়িতে আছি। চেষ্টায় আছি। তাকে আমি সম্মান করেই কথা বলব, কারণ সে আমার সন্তানের মা, আমার স্ত্রী। ‘

এর আগে ওমর সানী গণমাধ্যমে অভিযোগ করেন, মৌসুমীকে বিরক্ত করায় ডিপজলের ছেলের বিয়েতে পেয়ে জায়েদকে চড় মেরেছেন তিনি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পিস্তল বের করে সানীকে মেরে ফেলার হুমকি দেয় জায়েদ খান। এরপরই বিষয়টি নিয়ে হৈচৈ পড়ে যায়। জায়েদ অবশ্য তার বিরুদ্ধে সব অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x